স্কুল পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের মানসিক চাপ কমানোর সহজ উপায়

 শিক্ষার্থীদের মানসিক চাপ একটি সাধারন ব্যাপার। শিশু, মধ্যবয়স্ক কিংবা পূর্ণবয়স্ক শিক্ষার্থীরা নানা সময়ে বিভিন্ন ধরনের মানসিক বা হতাশায় ভুগে থাকে। আমরা যখন এই ধরনের সমস্যায় ভুগে থাকি তখন ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার মাধ্যমে তা থেকে বেরিয়ে আসি, অনেকে আবার এত বেশি চাপ সামলাতে না পেরে আত্মহত্যা করে। মনে রাখবেন, একটি খারাপ দিন মানেই পুরোটা জীবন খারাপ না। অবশ্যই এই ধরনের হতাশা থেকে বেরিয়ে আসার কোন না কোন উপায় থাকবে। এখানে কিছু কৌশল দেখানো হল কিভাবে দৈনন্দিন জীবনের এই সমস্যাগুলোকে থেকে বেরিয়ে আসতে পারবেন। এই ধরনের সচেতনতা থেকে জানতে পারবেন কিভাবে স্কুল বিষয়ক মানসিক চাপগুলো থেকে বেরিয়ে আরও ভালোভাবে আপনার কাজগুলো সমাধান করতে পারবেন।

 ১। সবসময় নিজের জন্য সময় বরাদ্দ রাখুন

নিজের জন্য সময় বের করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনি হয়তো ঘুমাতে পারেন কিংবা আপনি যা করতে ভালোবাসেন তা করে সময় কাটাতে পারেন। সারাদিনের ক্লান্তি শেষে নিজেকে সময় দিলে আপনি নানা ধরনের হতাশা থেকে রক্ষা পাবেন। তাই স্কুলের চাহিদা পুরন করে নিজেকে কিছুটা সময় দিন।

২। পড়াশুনা থেকে অল্প সময়ের অবসর নিন

গবেষণা মতে, দীর্ঘ সময় পড়ার পর অল্প একটু সময়ের জন্য বিরতি নিন এতে করে আপনি পরিবর্তী বার পড়া শুরু করার জন্য খানিকটা সাহায্য পাবেন। এতে করে পরবর্তী বিষয়গুলো পড়ার সময় আপনি বেশি মনযোগী হতে পারবেন। দীর্ঘ সময় পড়ার কারনে মানসিক দক্ষতা কমে যেতে পারে। এটি থেকে বাঁচার একমাত্র উপায় হল অল্প সময়ের জন্য বিরতি নেয়া।

৩। বাড়ির কাজগুলো যত দ্রুত শেষ করে রাখুন

যারা বাড়ির কাজগুলো করতে একটু গড়িমসি করেন তাদের জন্য এই ছোট্ট উপদেশ। এটি খুবই সাধারন ঘটনা যে শেষ দিন না আসা পর্যন্ত আমরা কাজগুলো শেষ করতে চাই না। মানসিক চাপের একটি বড় কারন হল অনেক কাজ জমিয়ে রাখতে রাখতে শেষ দিনে অনেক কাজ জমে যাওয়া এবং শেষ পর্যন্ত ভালোভাবে শেষ করতে না পারা। তাই, একটি ভালো কাজ করতে হলে আপনাকে অবশই আগে থেকেই কাজগুলো শুরু করে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সেগুলোকে শেষ করে রাখা।

 

৪। ইতিবাচক মনোভাব বজায় রাখুন

 যখন আপনি জমে থাকা কাজগুলো থেকে খুব বেশি আচ্ছন্ন থাকেন তখন কোন কিছুই ঠিকভাবে করতে পারবেন না। আপনার মন আপনার শারীরিক দক্ষতা বেশ খানিকটা কমিয়ে দিবে। তাই সবসময় ইতিবাচক মনোভাব বজায় রেখে কাজ করুন যাতে কাজগুলো যথাসময়ে করে ফেলতে পারেন। চিন্তিত না হয়ে কাজগুলোকে কিভাবে গুছিয়ে করতে পারেন সেটি নিয়ে ভাবুন।

৫। বাস্তবসম্মত লক্ষ্য নির্ধারণ করুন

বেশিরভাগ মানুষই বড় স্বপ্ন দেখে। আমরা স্কুলে এটিই শিখেছি। এই ধরনের বড় বড় স্বপ্নগুলোই আমাদের সামনে দ্বিধা হয়ে দাঁড়ায়। অসম্ভব কিছু চিন্তা না করে বরং এমন কিছু নিয়ে ভাবা উচিত যা আমাদের সাধ্যের মধ্যে আছে। আপনার লক্ষের সাথে নিজের বুদ্ধি, সামর্থ্য এবং দক্ষতাকে মিলিয়ে তারপর ভাবুন। মাঝে মাঝে অনেক অসম্ভব কিছু না পাওয়ার থেকে ছোট কিছু পাওয়া ঢের ভালো।

৬। আপনার পরামর্শদাতার সাথে কথা বলুন

 

যদি আপনার এমন কারো প্রয়োজন হয় যাদের সাথে কথা বললে আপনার মানসিক চাপ কমে যাবে তাহলে আপনার স্কুলের পরামর্শদাতার সাথে কথা বলুন। তিনি আপনাকে এমন একটি মাধ্যম দেখিয়ে দিবেন যা আপনার মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করবে। তারা আপনার পিতামাতা বা শিক্ষককেও সাহায্য করতে পারবেন। মনে রাখবেন আপনার পরামর্শদাতার সাথে কথা বলার সময় কোন ধরনের মিথ্যার আশ্রয় নিবেন না।

Reference

https://www.huffingtonpost.com/2013/02/27/academic-pressure-5-tips-_n_2774106.html

https://www.webmd.com/parenting/features/coping-school-stress#2

https://www.wikihow.com/Cope-With-Stress-at-School

https://www.wikihow.com/Deal-With-Stressful-Situations-in-School

এখনও কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।