মুভিতে ব্যবহৃত কিছু টেকনোলজি যা এখন বাস্তব

সিনেমা জগৎ বাস্তবের আরেক রুপ।আমাদের এই রহস্যময় জগৎ এখন আর আমাদের বিস্মিত করে না কিন্তু নানা সময়ে এই সিনেমা আমাদের ভবিষ্যতের পথ দেখায়। অনেক সময় কিছু টেকনোলজি আমাদের ভবিষ্যতের ঈঙ্গিত দিয়েছে যা বর্তমান সময়ে অসম্ভব মনে হয়েছে। আধুনিক টেকনোলজিকে ধন্যবাদ যার অনেক কিছুই আমাদের কাছে সত্যি হয়ে ধরা দিয়েছে।

এখানে কিছু টেকনোলজি তুলে ধরা হল যা বিভিন্ন সময়ে ছবিতে বর্ণনা করা হয়েছে যা এখন বাস্তব-

 

১। মোবাইল ফোনঃ সর্বপ্রথম মোবাইল ফোন ব্যবহার করা হয়েছিল ১৯৯৬ সালে। স্টার ট্রেক! মনে পড়ে? হ্যাঁ, যে যন্ত্রটি আমরা এখন প্রতিদিন ব্যবহার করি তা প্রথম ব্যবহার করা হয়েছিল আমেরিকায় স্টার ট্রেক নামক টিভি সিরিজে। ১৯৯৬ সালে এটি সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি টিভি সিরিজ ছিল তার আধুনিক সাজসরঞ্জাম এর কারনে যা এখন বাস্তবে রুপ নিয়েছে।

 

মজার ব্যাপার হল, আপনি যদি এই লিঙ্কে প্রবেশ করেন,www.offerali.com তাহলে বিশ্বের নান ধরনের মোবাইলের বিশাল অফার আর ডিস্কাউন্ট পাবেন।

 

২। ইন্টিলিজেন্ট এসিস্ট্যান্টঃ আপনি এই পয়েন্টটি শুনে বিভ্রান্ত হতে পারেন। কিন্তু যদি আপনি জানতে চান ইন্টিলিজেন্ট এসিস্ট্যান্ট কি তাহলে একটি শব্দই তা আপনাকে সাহায্য করবে তা হল আইফোনের “সিরি”এই ফিচারটি। ২০১১ সালে আইফোন এই ফিচারটি প্রথম আরম্ভ করে। এখন প্রত্যেক স্মার্টফোনেই তাদের নিজস্ব ভার্সনের “সিরি” রয়েছে। কিন্তু প্রথমে “ এ স্পেস অডিসি” নামক একটি ছবিতে এই ফিচারটি প্রদর্শন করা হয়।

একজন মহাকাশ ভ্রমণকারীকে সাহায্য করার জন্য “হাল” নামক একটি ফিচার ব্যবহার করা হয় যা প্রায় ৪৩ বছর পরে এসে সবার কাছে সহজলভ্য হয়।

 

৩। চালক বিহীন গাড়িঃ ৮০ এবং ৯০ দশকের শুরুর দিকে হলিউড এই অসাধারন চালক বিহীন গাড়ির ধারনা দেন। একটি গাড়ি যা নিজে থেকেই চলতে পারে। আর্নল্ড সয়েজনেগার এর “টোটাল রিকল” নামক ছবিতে এই ধারনাটি পৃথিবীর নজর কেড়ে নেয়। এখন টেসলা কোম্পানির চালক বিহীন গাড়ি রয়েছে।

পাশাপাশি অডি, বিএমডডব্লিউ এর ও এই ধরনের গাড়ি রয়েছে। যদি এটি প্রাথমিক স্টেজে রয়েছে তবুও বাস্তবে বিদ্যমান।

 

৪। ভার্চুয়াল বাস্তবতাঃ ভিআর অথবা ভার্চুয়াল বাস্তবতা সবার মধ্যে বিশাল সাড়া ফেলেছে। বিশাল স্কি-ফি ফ্রেঞ্চাইজ “ পিছনে ফিরে যাওয়া” এটিকে প্রথম জনপ্রিয় করেছে। পরিধানযোগ্য কম্পিউটার হিসেবে এটি মুভিতে প্রথম দেখানো হয়েছে কিন্তু আমরা জানি এটি এখন কত অসাধারণ।

শুধুমাত্র মোবাইল ফোনের সাহায্যে যেকোন জায়গা থেকে ভিআর হেডসেট ব্যবহার করা যায়। ভিআর ব্যবহার করতে চান? ভিজিট করুন, offerali.com যেখানে আপনি পাবেন বিশাল ছাড় আর বেস্ট ডিল।

 

৫। ইন্টারনেটঃ কোন সন্দেহ নেই যে ইন্টারনেট এই সময়ে আমাদের জন্য আশীর্বাদ সরূপ। আমাদের জানা উচিত এই যে আমরা প্রতিদিন যত তথ্য আদান প্রদান করছি ইন্টারনেটের মাধ্যমে, সেই ইন্টারনেট ও প্রথম মুভিতে দেখানো হয়েছিল। ৬০ এবং ৭০ এর দশকে মুভি আর ট্রেক, স্ট্রেইন নামক  টিভি সিরিজে প্রথম যে কোন জায়গায় যোগাযোগের জন্য ইন্টারনেট ব্যবহার করা হয়, যা বর্তমানে ইন্টারনেট নামে পরিচিত।

ওয়াই-ফাই ইন্টারনেটের আধুনিক সংস্করণ। যদিও ওয়াই-ফাই রাউটার এর মাধ্যমে প্রথিবির যে কোন জায়গায় যোগাযোগ করা সম্ভব। ঘরে বসেই ওয়াই-ফাই রাউটার কিনতে চান? এখুনি ঘুরে আসুন offerali.com এ যেখানে পাবেন সেরা অনলাইন ইলেকট্রনিক্স এর বিশাল সমারোহ।

 

 

 

 

 

এখনও কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।