বাড়ন্ত শিশুর বাসায় কি করা উচিৎ

শিশু মানেই সারাক্ষণ নানান ধরনের কর্মকান্ড বিনোদন আর হুটোপুটি। তারা সারাদিন দৌড়ঝাঁপ আর খেলাধুলা নিয়ে মেতে থাকে। তাদের মধ্যে প্রচণ্ড জীবনীশক্তি কাজ করে বিশেষত তারা যখন অন্য শিশুদের সংস্পর্শে থাকে। খেলাধুলা করার জন্য শিশুদের পছন্দের তালিকায় থাকে খেলার মাঠ, স্কুল, পার্ক অথবা যেকোনো খোলামেলা জায়গা। কিন্তু কি হয় যখন শিশুরা বাড়িতে থাকে? বাড়িতে শিশুদের ব্যস্ত রাখতে কি কি মজার কাজকর্ম করা যেতে পারে?

১। শিশুর শৈল্পিক বিকাশ

যখন আমি ছোট ছিলাম, আমার মা আমাদেরকে আঁকাআঁকি  এবং রঙ করার জন্য বিশেষ জোর দিতেন। খেলার পাশাপাশি আমরা আমাদের শিল্পী সত্তা বিকাশের জন্য সময় বের করতাম, এবং এই অভিজ্ঞতা আমাদের শিল্পমনা হতে সাহায্য করেছে। এটা শুধু আপনার সন্তানকে শিল্পমনা হতে সাহায্যই করবে না বরং বেশ আনন্দ প্রদান ও করবে। এটা তাদের কল্পনাশক্তি বাড়াবে। ছোটবেলা থেকেই শিল্পচর্চার সংস্পর্শে থাকাটা স্পষ্টতই আমার পরবর্তী জীবনে এই বিষয়ে যথেষ্ট ভূমিকা রেখেছে।

www.pexels.com

২। শিশুদের শিক্ষা উপকরন সরবরাহ

শিশুরা যখন বাড়িতে থাকে, তারা বিভিন্ন ধরনের বিনোদন মূলক কাজে ব্যস্ত থাকতে চায়। তখন বিভিন্ন ধরনের শিক্ষা সামগ্রী দিয়ে সন্তুষ্ট করার যেতে পারে যা তাদের স্মৃতিশক্তি প্রখর করতেও সাহায্য করবে। ভাল ফলাফল পাবার জন্য তাদের পুরস্কার প্রদান করা যেতে পারে যাতে তারা আরো উৎসাহী হয়। শিশুদের নানা ধরনের প্রশ্ন করে তাদের বোধশক্তি পরিক্ষা করা যেতে পারে এবং ভালো ফলাফল করলে তাদের অবশ্যই প্রশংসা এবং পুরস্কৃত করা উচিৎ। এটা অনেকটা এক ঢিলে দুই পাখি মারার মত। শিশুরা তাদের বিনোদনের মধ্য দিয়ে নানান ধরনের শিক্ষামূলক তথ্য জানতে পারবে।

www.pexels.com

 ৩। হাতে কলমে শিক্ষণ

আপনার শিশুকে হাতে-কলমে কাজ করার শিক্ষা দেয়ার মাধ্যমে তাদের সৃজনক্ষমতা বাড়াতে পারেন। যেমন, ঘর সাজসজ্জা, হাতে তৈরি পোশাক, নিজের তৈরি করা ডায়ইরিএবং খাবারের রেসিপি। এগুলো করার মাধ্যমে আপনার সন্তান শুধু বিনোদনই পাবেনা সাথে সাথে এগুলো তাকে অনেক কিছু শিখতে সাহায্য করবে।

www.pexels.com

৪। ঘরের টুকিটাকি কাজ শেখানো

অভিভাবক হিসেবে নিজের সন্তানদেরকে নিয়মকানুন শেখানো এবং তাদের ভবিষ্যতে সঠিকভাবে বেড়ে ওঠার জন্য প্রয়োজনীয় শিক্ষা প্রদান করা  আমাদের দায়িত্ব। আমাদের দৈনন্দিন জীবনে গৃহস্থালি কাজকর্মের গুরুত্ব অনস্বীকার্য। এজন্য, সকল অভিভাবকের উচিত তাদের সন্তানদেরকে তাদের সামর্থ্য অনুযায়ী ঘর গৃহস্থালির কাজকর্ম সম্পর্কে ধারণা দেয়া এবং হাতে কলমে শেখানো। যত তাড়াতাড়ি শিশুদেরকে এ সকল টুকিটাকি কাজ শেখানো যায় ততই তাদের জন্য ভালো।  এটা হয়তো তাদের ভালো না ও লাগতে পারে কিন্তু ভবিষ্যতে এই শিক্ষা তাদের কাজে লাগবে।

www.pexels.com

৫। শিশুকে বিশ্রাম দিন

শিশুর সকল দুরন্তপনা এবং কর্মকাণ্ডের মধ্যেও বিশ্রাম নেয়া তাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। শিশুকে তাড়াতাড়ি বিছানায় পাঠানো তাদের জন্য  স্বাস্থ্যকর । গবেষণা মতে, ঘুম শিশুকে বেড়ে উঠতে সাহায্য করে, জীবাণু ধ্বংস করে, হৃৎপিণ্ড সচল রাখে, আঘাতের ঝুঁকি কমায়,  শেখার প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করে এবং আরো অনেক কিছু।  সুতরাং, শিশুকে পর্যাপ্ত পরিমান ঘুমের সুযোগ দিন কারন এর সুফল অনেক যা আপনার চিন্তার বাইরে।

www.pexels.com

 

এখনও কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।